গাড়ি পাঁচ আসনের, বের হলেন ১৮ জন! (ভিডিও)..

481

প্রতিদিন পাবলিক ট্রান্সপোর্টে গাদাগাদি, ধাক্কাধাক্কিতে অফিস যাওয়ার অভিজ্ঞতায় পূর্ণ নাগরিক জীবন। যানজটে যাত্রী বোঝাই বাসের কষ্টের দীর্ঘশ্বাস অফিসে এসে উগরে দিই আমরা নিয়মিতই।তবে সম্প্রতি সামাজিক মাধ্যমে যে ভিডিওটি ভাইরাল, তা দেখে প্রতিদিনের দুঃখ ভুলে যাবেন আপনি। গাদাগাদি সম্পর্কে আপনার ধারণাই পাল্টে যাবে।ভিডিওটি দেখে বিস্মিত উন্নত দেশের নেটিজেনরা। কেন আর কীভাবে এটা সম্ভব সে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া এ ভিডিওটিতে দেখা গেছে, মাত্র ৫ জন বহনক্ষম একটি প্রাইভেটকার হতে বের হচ্ছে গুনেগুনে ১৮ জন!ঘটনাটি ঘটেছে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের রাষ্ট্র ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্রে।ভিডিওটিতে দেখা যায়, অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই গাড়িটিকে মহাসড়কে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সবাইকে বের হতে বলেন তারা।তারা অবাক হন যে পেছনের ৩ জন আরোহীর স্থলে একজন নারী ও এক শিশুসহ সেখান থেকে বের হচ্ছেন ১২ জন!এছাড়াও গাড়ির পেছনের ক্যারিয়ার থেকে বের হন আরো ৫ যাত্রী। ট্রাংকের ভেতরে একে অপরের ওপর সংকুচিত হয়ে শুয়েছিলেন তারা।

ভিডিওটি দেখে চার দরজার গাড়িটিকে তারা পাঁচ দরজার বানিয়ে ফেলেছেন বলে রশিকতা করছেন কেউ কেউ।ঘটনাটিকে সামাজিক মাধ্যমে সার্কাস, ম্যাজিক বা হাস্যকর বলে উল্লেখ করা হলেও বিষয়টি নিয়ে শংকিত ডোমেনিকান ট্রাফিক কন্ট্রোল।দেশটির চালক ও অসচেতন নাগরিকদের এমনটা না করতে আইন করেছে তারা। কেননা এমন অত্যধিক বোঝাই করা গাড়ি দুর্ঘটনায় পতিত হবার আশংকা সবচেয়ে বেশি আর এতে সর্বাধিক প্রাণহানি হতে পারে।

তবু এ আইনকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে এভাবে গাড়িতে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করে যাচ্ছে ডোমেনিকান প্রজাতন্ত্রের চালকেরা।প্রসঙ্গত এমন আরেকটি ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল যেটা ঘটেছিল রাশিয়ার এক শ্রমিক কারখানায়। যেখানে দেখা গেছে, কারখানায় আসতে ব্যবহৃত পাঁচ আসনের পুলকার থেকে বের হচ্ছেন ১৭ জন শ্রমিক।শুধু তাই নয়। সঙ্গে রয়েছে তাদের বিনোদনের জন্য রয়েছে গিটার ও অন্যান্য সামগ্রি।২০০৯ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার রাজধানী কেপটাউনে এমন একটি রেকর্ড হয়েছিল। ২৬ জন ধারণক্ষম একটি মিনিবাসে যাত্রী নেয়া হয়েছিল ১২৬ জন!ঘটনাটির পর দক্ষিণ আফ্রিকার মেয়র কমিটি সদস্য জেপি স্মিথ স্থানীয় সংবাদমাধ্যম নিউজ ২৪ কে জানিয়েছিলেন, এটা অস্বীকার করা যাবেনা যে, পাবলিক বাসের অপ্রতুলতা রয়েছে। তবে এ ধরনের মূর্খের মতো কাণ্ড বরদাশত করা অনুচিত এবং সড়ক নিরাপদ রাখতে এদের জন্য কঠোর শাস্তি বিধান করা উচিত।
ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুনঃ