ঘরোয়া চিকিৎসায় চর্মরোগ ‘দাদ’ থেকে মুক্তির উপায়..

948

গোলাকৃতির চর্মরোগ যা ধীরে ধীরে আয়তনে বাড়ে ও চুলকায়। চর্মের এই রোগটি দিনে দিনে লাল হয়ে বাড়তেই থাকে। রোগটির নাম রিংওয়ার্ম বা দাদ। হাত, পা, পিঠ এমনকি শরীরের অন্যান্য সব জায়গায়তেও দাদ দেখা যেতে পারে। এক ধরনের ছত্রাকের আক্রমণে দাদ হয়, এটি ছোঁয়াচে এবং একজন থেকে অন্যজনে ছড়িয়ে পড়ে খুব সহজেই।দাদের এই সমস্য দূর করতে রসুন বেশ কার্যকর। দুই এক কোয়া রসুন ভালো করে থেঁতলে নিয়ে মধু ও অলিভ অয়েল মিশিয়ে দাদে লাগিয়ে ঘণ্টাখানেক অপেক্ষা করে ধুয়ে নিতে হবে। এভাবে সপ্তাহে তিন থেকে চারদিন ব্যবহারে দাদের সমস্যা কমে আসবে।ছত্রাকের আক্রমণে দাদ হয় আর মধু ছত্রাকের আক্রমণ রোধ করে। পরিষ্কার তুলায় মধু লাগিয়ে দাদের উপর ভালো করে লাগিয়ে রাখতে হবে। প্রতিদিন নিয়ম করে লাগালে দাদ দূর হবেই।তুলসি পাতাও বেশ কার্যকরী।

এর রস দাদের চুলকানি, র‍্যাশ, ছড়িয়ে যাওয়া রোধ করে। এন্টি ফাংগাল উপাদান থাকায় নিয়ম করে তুলসি পাতা বেটে দাদের উপর লাগিয়ে ঢেকে রাখুন। কিছুদিন নিয়মিত ব্যবহারেই দাদ দূর হবে।জয়ফল শুধু মশলা হিসেবেই নয় দাদের চিকিৎসাতেও বেশ কার্যকর। জায়ফল গুঁড়ো পানির সাথে মিশিয়ে সেই মিশ্রন লাগালে দাদের চিকিৎসায় উপকার পাওয়া যায়।এছাড়া এলোভেরা দাদের চুলকানি ও প্রদাহ দূর করে। এর জেল দাদের উপর প্রতিদিন নিয়ম করে লাগালে দাদ দূর হবে। কাঁচা হলুদের রসও একই কাজ করে। হলুদের রস আক্রান্ত দাদ ছড়িয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করে। তবে দাদের সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে পরিছন্নতা জরুরি। সংক্রমণ অতিমাত্রায় বেড়ে গেলে ঘরোয়া চিকিৎসার পাশাপাশি চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।