আমরা মরে গেলেও নৌকা ছেড়ে কোথাও যাবো না!

245

ঘূর্ণিঝড় সর্ম্পকিত প্রশাসনের কোন নির্দেশনার তোয়াক্কা করছেন না লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা মজুচৌধুরীর হাট এলাকায় বসবাসরত বেদে পরিবার গুলো।
প্রয়োজনীয় খাবার সামগ্রী দেওয়ার আশ্বাসের পরেও অজানা ভয়ে তাঁরা নিজেদের নৌকা ছেড়ে যাবেনা বলে জানিয়ে দেন।

আজ (৩ মে) শুক্রবার দুপুর ২টা থেকে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিল ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফাহমিদা মোস্তফা বেদে পরিবারদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে সর্বাত্মক চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়।
এসময় তাদের সাথে ছিলেন, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট রহমত উল্যা বিপ্লব ও স্থানীয় চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ সৈয়াল।
বেদে পরিবারের পক্ষ থেকে গোলাপ মাঝি বলেন, আমরা মরে গেলেও নৌকা ছেড়ে কোথাও যাবো না। প্রশাসনের লোকজন ও চেয়ারম্যান আমাদের বলেছে ঘূর্ণিঝড়ের কবল থেকে রক্ষা পেতে নিরাপদ আশ্রয়ে (স্কুলে) গিয়ে থাকলে আমাদের শুকনো খাবারসহ প্রয়োজনীয় খাবার দেবে। কিন্তু আমাদের বেদে পরিবারের কেউ নিজেদের নৌকা ছেড়ে কোথাও যেতে রাজি নয়।

মাঝি আক্কাস হোসেন জানান, ঝড়ে নৌকা ডুবে যাওয়ার ভয়ে কেউ যেতে চাইছেনা। তবে ঝড় শুরু হলে হয়তো কেউ কেউ নিরাপদ আশ্রয়ে যাবে।
লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিল বলেন, দুপুর ২টা থেকে বেদে পরিবার গুলোকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিরাপদ স্থানে সরে যেতে বলা হচ্ছে। কিন্তু বেদে পরিবারের লোকজন নিজেদের নৌকা ছেড়ে কোথাও যাবেনা বলে জানিয়ে দেন।
উল্লেখ. ঘূর্ণিঝড় ফণী’র আঘাত হানার আগে লক্ষ্মীপুরের প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। দূর্গমচর অঞ্চল থেকে মানুষদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে আনা হচ্ছে। আজ শুক্রবার রাতে ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে বলে আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়।