ফণীর কারণে বাংলাদেশের বড় কোনো বিপদের আশঙ্কা নেই

201

বাংলাদেশের দিকে প্রবল শক্তি নিয়ে এগিয়ে আসা ঘূর্ণিঝড় ফণী যখন আঘাত হানবে তখন এর শক্তি অনেকটা কমে যাবে। এজন্য ফণীর কারণে বাংলাদেশের বড় কোনো বিপদের আশঙ্কা নেই বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদ বজলুর রশীদ।
এ ব্যাপারে বিবিসি বাংলার সঙ্গে সাক্ষাৎকারে এই আবহাওয়াবিদ বলেন, ‘ভারতের পশ্চিমবঙ্গ হয়ে ঘূর্ণিঝড় ফণী যখন বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ঢুকবে, তখন এর গতি হবে ঘণ্টায় ৯০ থেকে ১১০ কিলোমিটার।’
‘আমি বলবো সাধারণ মাত্রার একটি ঘূর্ণিঝড় আসছে। গতি ৯০ কিলোমিটারের বেশি হলে আমরা তাকে অতি প্রবল ঝড় বলি। তবে ধীরে ধীরে এটি শক্তি হারাচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘ফণী পুরোপুরি ডাঙ্গায় উঠে গেছে। উড়িষ্যা থেকে এখন এটি পশ্চিমবঙ্গের দিকে এগুচ্ছে। মধ্যরাতের পরে যেকোনো সময় এটি আঘাত হানবে। যত এগুবে তত শক্তি হারাতে থাকবে।’

‘তারপরও ঝড়ের প্রভাবে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের নিচু অঞ্চলগুলো প্লাবিত হতে পারে। বৃষ্টি হবে অনেক। ঝড়ো বাতাসে কাঁচা ঘরবাড়ি কিছু নষ্ট হতে পারে। ঝড়ো বাতাসে এবং জমি প্লাবিত হওয়ায় অনেক জায়গায় ফসল নষ্ট হবে।’
এ সময় বজলুর রশীদ আরও বলেন, ‘মারাত্মক কোনো বিপদের আশঙ্কা নেই। তবে মধ্যরাত থেকে পরদিন দুপুর পর্যন্ত সাবধানে থাকতে হবে।’ তিনি বলছেন, ‘বাংলাদেশের ঢোকার পর কুষ্টিয়া, পাবনা, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, রংপুর, দিনাজপুর হয়ে ঝড়টি শনিবার সন্ধ্যা নাগাদ ভারতের মেঘালয়ে ঢুকে যাবে।’
‘এসময় এসব জায়গাগুলোত বৃষ্টি অব্যাহত থাকবে। সাথে থাকবে দমকা ঝড়ো বাতাস। তবে যত সময় যাবে, বৃষ্টি এবং বাতাসের তীব্রতা কমতে থাকবে। রবিবার নাগাদ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে বলে ধারণা করছি।’