ফণীর আঘাতে ১০ জনের মৃত্যু

293

প্রচণ্ড শক্তি নিয়ে ভারতের ওড়িশা উপকুলে আছড়ে পড়েছে ঘুর্ণিঝড় ফণী। ঘূর্ণিঝড়ে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পুরী, জগৎসিংপুর, কেন্দপড়া এবং খুরদা রোড।
স্থানীয় গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে দ্য হানস ইন্ডিয়া ও হাফপোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উত্তর প্রদেশে ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে সৃষ্ট বজ্রপাতে ও গাছ উপড়ে অন্তত ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে উত্তর প্রদেশে আট জন ও উড়িষ্যায় দুই জনের মৃত্যু হয়েছে।
হানস ইন্ডিয়া জানায়, উত্তর প্রদেশের চান্দাওলিতে জেলায় বজ্রপাতে মৃত্যু হয়েছে চার ব্যক্তির। একই ঘটনায় গুরুতর আহত হন আরও পাঁচ জন। একই জেলায় গাছ উপড়ে প্রাণহানি ঘটেছে এক বৃদ্ধ ব্যক্তির।

এছাড়া সোনেভারদা জেলার পান্নুগঞ্জে বজ্রপাতে মারা যান এক তরুণ। একই ঘটনায় গুরুতর আহত হয় দুই ভাই। তাদের পরবর্তীতে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তাদের।
এদিকে, উড়িষ্যার বিশেষ ত্রাণ কমিশনার বিষ্ণুপাডা সেঠি বলেন, এখন পর্যন্ত আমি দুই জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করতে পারবো। এর মধ্যে একজন, আশ্রয়কেন্দ্রে ‘হার্ট অ্যাটাকে’ মারা গেছেন। অপর একজন আমাদের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঝড়ের মধ্যে বাইরে যান। সেসময় তার ওপর একটি গাছ উপড়ে পড়লে তিনি মারা যান।

উল্লেখ্য, প্রাথমিকভাবে দ্য হিন্দু জানায়, ঘূর্ণিঝড়ের কবল থেকে বাঁচতে আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার পথে গাছ উপড়ে পড়ে এক নারীর মৃত্যু হয়। শুক্রবার প্রদেশটির কেন্দ্রাপারা জেলায় এই ঘটনা ঘটে। ওই নারী সমুদ্র উপকূলবর্তী গ্রাম দেবেন্দ্রনারায়নপুর গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। তবে এ বিষয়ে কিছু জানাননি কমিশনার।
ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে অঞ্চলটির বিভিন্ন এলাকার সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন রয়েছে বহু এলাকা, বন্ধ রয়েছে ইন্টারনেট সেবা। ওড়িশার ১১ জেলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পুরীর সমুদ্রে প্রবল জলোচ্ছ্বাস সৃষ্টি হয়েছে। গোপালপুরসহ একাধিক এলাকায় বৃষ্টির সঙ্গে বইছে প্রবল বাতাস। বিভিন্ন এলাকায় উপড়ে পড়েছে গাছ-পালা।