শ্রমিকের স্বীকৃতি চায় যৌনপল্লির নারীরা

235

শ্রমিকের অধিকার চান যৌনপল্লির নারীরা। মহান মে দিবসের ঠিক একদিন আগে গত মঙ্গলবার সোনাগাছিতে এই শ্লোগান দিয়ে মিছিল করেন কয়েক হাজার যৌনকর্মী। সেই মিছিলে তাদের সন্তান ও অন্যান্য সংঠনের সদস্যরাও হাজির ছিলেন।
শ্রমিক হিসেবে স্বীকৃতির দাবিতে গত কয়েকবছর ধরে লাগাতার আন্দোলন করে চলেছেন পশ্চিমবঙ্গের সোনাগাছিসহ রাজ্যটির বাকি যৌনপল্লির কর্মীরা। তারই ধারবাহিকতায় তাদের এই অধিকার প্রতিষ্ঠার মিছিল।

শ্রমজীবী মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বিশ্বজুড়ে পালিত হচ্ছে মহান মে দিবস। তাই নিজেদের অধিকার আদায়ের দাবিতে আজ সোনাগাছির যৌনকর্মীরা তাদের কাজ বন্ধ রাখেন। মিছিলে সবার হাতে ভিন্ন ভিন্ন স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড দেখা যায়।
টিনকা নামের (ছদ্মনাম) এক নারী গত পাঁচ বছর ধরে থাকেন কলকাতা শহরের এই যৌনপল্লিতে। তাই সোনাগাছির অনেকে ঘটনার সাক্ষী তিনি। তার অভিযোগ, ‘সমাজে এখনও আমাদের নানা ধরনের অত্যাচার সহ্য করতে হয়। কখনও চাঁদার জুলুম তো কখনও মাস্তানের চোখরাঙানী। তাছাড়া পুলিশের বিভিন্ন ধরনের অত্যাচার রয়েছে।’

তিনি বলতেই থাকেন, ‘অনেকে পাশে থাকার কথা বললেও লড়াইটা অনেক ক্ষেত্রে একা নিজেকেই করতে হয়। এত কিছু সত্ত্বেও এখনো আমরা শ্রমের স্বীকৃতি পেলাম না। সরকারি শ্রমদফতরে যৌনকর্মী হিসাবে আমাদেরকে নথিভুক্ত করতে হবে। এটা আমাদের মূল দাবি। জানি না কবে মিলবে সেই অধিকারের স্বীকৃতি।’
তাছাড়া ইমমরাল ট্রাফিকিং আইনের ফাঁদে পড়েও তাদেরকে নানারকম হয়রানির শিকার হতে হয়। সোনাগাছির বিভিন্ন পাড়ায় সব যৌনকর্মীর একই অভিযোগ। তারা বলছেন, ‘এটা আমাদের পেশা। তবু কেন পুলিশ আমাদের হয়রান করবে আর কবে এসব বন্ধ হবে?’
মঙ্গলবার বিকেলে সোনাগাছি যৌনপল্লির শীতলা মন্দির এলাকা থেকে বিধান সরণী হয়ে যৌনকর্মীদের মিছিল বিডন স্ট্রীট হয়ে হেদুয়া পৌঁছায়। সেখানে আরও তিনটি যৌনপল্লির কর্মীরা মিছিলে যোগ দেন। সেই মিছিল শ্রদ্ধানন্দ পার্কে গিয়ে শেষ হয়।