মুখে লম্বা দাড়ি নিয়ে সাকিবের ‘জুমা মুবারক’, ভক্তদের সমালোচনার ঝড়

174

সাকিব আল হাসান গাড়িতে বসে আছেন। এ সময় দেখা যায় মুখে বড় দাড়ি। একটা ক্লোজ শট সেলফি। এ ছবি দিয়ে সবাই ‘জুমা মুবারক’ জানিয়েছেন ক্রিকেট ক্রেজ সাকিব আল হাসান। এই ক্রিকেট তারকার কোনো পোস্ট মানেই তা ভাইরাল। এটাও তাই।

কিন্তু এ ছবিতে কিছু বিরূপ মন্তব্য এসেছে। মূলত তার এই দাড়ি নিয়ে কমেন্টের ঘরে আলোচনা-সমালোচনা ঝড় বইছে। এখানে মানুষের নানা প্রতিক্রিয়া একনজরে দেখে নেয়া যাক।

এখানে মোজাম্মেল বাচ্চু নামের একজন প্রশংসাসূচক বাক্যে লিখেছেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ। ভালো এবং সুন্দর দেখাচ্ছে।

কিন্তু এই কমেন্টে আসিফুল অভি লিখেছেন, ‘হুজুগে খুশি হওয়ার আগে ছবিটা জুম করে দেখেন! এইটা লাগানো দাড়ি! বিঃদ্রঃ দাড়ির আঠাযুক্ত স্টিকার দেখা যাচ্ছে!’

আবার আবু সাঈদ তুহিন বলছেন, ‘মাশাআল্লাহ লেখার আগে ফটোটা জুম করে দেখুন…সাকিব এটা না করলেও পারতো।’

এখানে ইব্রাহিম খলিল দিপু বলছেন, ‘সাকিব ভাই, খুশি হলাম আপনার এমন পরিবর্তন দেখে। কিন্তু ভাবীকেও কি আপনার মত ইসলামি নিয়ম কানুনের ভেতর নিয়ে আসা যায় না?’

আবার মো. শাহজালাল মিয়ার মন্তব্য, ‘ভাই, আফনেরে দেখি পুরাই জঙ্গীদের মত লাগতেছে।’

এখানে মহিউদ্দিন হাওলাদার বলছেন, ‘দাড়ি নিয়ে তামাশা করার কারণ কি? এটা নবীর সুন্নত, তামাশা করবেন না।’

মেহেদি ইএনএফ’র মন্তব্য, ‘ভাই এই ফেক দাড়ি লাগিয়ে ছবি দেওয়ার কি দরকার ছিল???? শুধু শুধু নিজের মানসম্মানটুকু ডুবাইলেন। ছিঃ।’

ফয়সাল আহমেদ লিখেছেন, ‘ফেক দাড়ি। মনে হচ্ছে স্টিকর দিয়ে লাগানো?’

আবদুর রহমান রায়হান স্মিথ বলছেন, ‘সাকিব ভাই কি ফাযলামী করেন নাকি দাড়ি নিয়া?
নিজেকে নিজে ট্রল করার সুযোগ করে দিচ্ছেন কেন?’

তাছাড়া মো. তৌফিকুল ইসলাম লিমন লেখেন, ‘আমি আপনার খুব ভক্ত…তবে স্যার যদি দাড়ি রাখেন তাহলে একেবারে রাখবেন। দয়া করে নবীর সুন্নত নিয়ে ফ্যাশন করবেন না।’

সাব্বির রহমানের কমেন্ট, বুকে আয় ভাই। এই যুগে এমন নিঃস্বার্থ মানুষ আমি দেখি নাই, যে একাদশের বাহিরে থেকেও প্রত্যেক ম্যাচে পোস্ট দিয়ে এমবি খরচ করে।

এখানে আতাউর সুষময় বলছেন, ‘হযরতে মাওলানা কায়েমি আখেরি দয়াল হাজী সাকিব অল হাসান সাহেব!
এই ছবিতো কয়েকবছর আগের ছবি। এখন আপলোড দিয়ে পাবলিককে বিভ্রান্তি করছেন যে? জনগণ তো ভাববে আপনার হরমোনে সমস্যা আছে প্রচুরভাবে। কেননা গত পরশু খেলায় দেখছে কেমন, আজ দেখছে পুরো উল্টো!’

আহমেদ মুত্তকিম লিখেছেন, ‘ভাই থুতনির নিচের আঠা গুলো মুছে নিলে ভালো হতো। আঠায় আঙুলের ছাপ পইড়া গেছে পুরা। আর যেই গাধারা কইতাছে এটা হজের পরের ছবি, ওগোরে কই, হজের পর ওর মাথায় চুল আছিল কট্টুক কট্টুক? মূর্খ বলদগুলা।’

সাদেক হোসেন খোকা লিখেছেন, ভাই আপনারে না নিলে হায়দদ্রাবাদ হারবে হারুকগা! বাদ পরবে পরুকগা। আপনে ওইখানে থাইক্কাই ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রস্তুতি নেন!

এনামুল হক বিজয় বলছেন, ‘আপনাকে নেয় না এজন্য হারছে। মানসম্মান আর রাখলেন না। দলে খেলার সুযোগ দেয় না আপনাকে, কয়টা টাকার জন্য পড়ে আছেন। কি করবেন এত টাকা দিয়ে? দাফনের কাপড়ের তো পকেট নাই।’