ক্যামেরা দিয়ে আগুন নেভাতে দেখেছেন কখনো?

266

বনানীতে বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) দুপুরে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে উনিশ। হতাহত সংখ্যা সত্তর ছাড়িয়েছে। সারাদিন অসুস্থ শরীরে সামাজিক মাধ্যমে ও টিভিতে যেটা দেখে রাগান্বিত হয়েছি তা হচ্ছে আমার দেশের সেনা, নৌ, বিমান বাহিনীসহ ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের ঢুকতে অসুবিধা তৈরি করা উৎসুক জনতাকে দেখে।

আচ্ছা! বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে দেখা ক্যামেরার সংখ্যা মনে হলও কয়েক হাজারের মত। যদি কয়েক হাজার মানুষ আশপাশের মসজিদ থেকে পানি সরবরাহ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দ্রুত পদক্ষেপে পাঠানো সেনা, নৌ, বিমান বাহিনীসহ ফায়ার সার্ভিসকে সহায়তা করতেন হতাহত সংখ্যা অর্ধেকের বেশী নামানো সম্ভব হতো।

উৎসুক জনতাকে আমার প্রশ্ন ক্যামেরা দিয়ে আগুন নিভাতে দেখেছেন কখনো? একজন গনমাধ্যমের কর্মী হিসেবে তাজনীন ফ্যাশনের ঘটনায় আমি নিজেও লড়েছি জীবন রক্ষা করতে উদ্ধারে সহায়তা দিয়েছি ফায়ার সার্ভিসের পুরো টিমকে। আজ বনানীর ঘটনায় সাধারণ উৎসুক জনতা সব বাহিনীকে উদ্ধার কাজে সহায়তার চেয়ে তাদের ঘটনাস্থলে ঢুকতেই বিরম্বনায় ফেলেছে। বাসায় হয়তো ফিরেছেন বীর হিসেবে ঘরে দেখাচ্ছেন এরমধ্যে ক্যামেরা ছবি তুলে, সেলফি তুলে কিংবা ফেসবুক লাইভ করে কিছু একটা করেছেন। সত্যিই টিভি খুলে দেখুন? আজ বনানীর ভয়াবহ আগুনে আপনিই লাশের সংখ্যা, হতাহতের সংখ্যা বাড়িয়েছেন। এমন বিপর্যয় পরিস্থিতিতে সবার দরকার রাষ্ট্রের সকল বাহিনীকে উদ্ধার কাজে ঘটনাস্থলে প্রবেশ করতে দেওয়ার অথচ আমরা করছি তার বিপরীত।

আচ্ছা! আগামীকাল আরেকটি ভয়াবহ আগুনে যদি আপনি থাকেন ভবনের ভিতরে আর উপর থেকে তাকিয়ে দেখেন রাস্তায় হাজার মানুষ অথচ উদ্ধারের কেউ নাই? দেখছেন হাজার ক্যামেরা অথচ উদ্ধারের জন্য আসা সব বাহিনীর গাড়ি আটকে আছে কেমন লাগবে দেখতে? মানুষ আল্লাহর সেরা দুনিয়াতে প্রশ্ন রেখে আমার মতামত শেষ করলাম।